টুংরো ভাইরাসের আক্রমণে কৃষকের চোখে-মুখে হতাশা

0

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আমন ধানের উৎপাদন ভাল হলেও টুংরো ভাইরাসের আক্রমণে কৃষকের চোখে-মুখে দেখা দিয়েছে হতাশা। শেষপর্যন্ত ফসল ঘরে তুলতে না পারলে লোকসান গুণতে হবে তাদের। তবে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সময়মত ব্যবস্থা নেয়ায় ক্ষতির পরিমান অনেকটাই কম।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার দ্বিতীয় প্রধান ফসল রোপা-আমন। চলতি বছর জেলার ৯টি উপজেলায় ৪৬ হাজার হেক্টর জমিতে রোপা আমন চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে কৃষি বিভাগ। তবে আবাদ হয়েছে ৪৮ হাজার হেক্টর জমিতে। এবার আমনের আশানুরূপ ফলন হলেও টুংরো রোগের আক্রমনে কসবা উপজেলায় আমনের ক্ষেত অনেকটাই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। প্রয়োজনীয় কীটনাশক প্রয়োগ করেও সুফল পায়নি কৃষকেরা। প্রতি বিঘা জমিতে ১৮ থেকে ২০ মন ধান পাওয়ার কথা থাকলেও আশানুরূপ ফসল ওঠেনি চাষীদের ঘরে । তাই উৎপাদন খরচ না ওঠায় লোকসানের আশঙ্কায় দিশেহারা তারা ।

তবে সময় মত ব্যবস্থা নেয়ার কারণে ক্ষতির পরিমান অনেকটা কমেছে। এমনটা জানালেন জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপ-পরিচালক।

কৃষকদের ক্ষতিপুষিয়ে নিতে, দ্রুত সংশ্লিষ্টরা সহায়তায় এগিয়ে আসবেন এমনই প্রত্যাশা স্থানীয় চাষীদের।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন