জি কে শামীম ও খালেদ মাহমুদকে দ্বিতীয় দিনের মতো জিজ্ঞাসাবাদ

0

অবৈধ সম্পদ অর্জন মামলায় জি কে শামীম ও খালেদ মাহমুদকে দ্বিতীয় দিনের মতো জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন দুদক কর্মকর্তারা। সকাল সাড়ে ১০টায় জি কে শামীম এবং বিকেলে খালেদ মাহমুদকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এই দু’জনের বিরুদ্ধে দুদকের মামলায় ৭ দিনের রিমাণ্ড মঞ্জুর করে আদালত। এদিকে, দুর্নীতির কারণে মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিষয় নিয়ে দুদক কার্যালয়ে আসেন মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান নাছিমা বেগম।

দুদক কার্যালয়ে দ্বিতীয় দিনের মতো জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রমনা থাকা থেকে নিয়ে আসা হয় জি কে শামীমকে। তিনি এবং তার তার মা আয়েশা আক্তারের বিরুদ্ধে ২৯৭ কোটি ৮ লাখ ৯৯ হাজার টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে গেলো ২১ অক্টোবর মামলা করে দুদক।

যুবলীগের বহিষ্কৃত নেতা ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদকেও আনা হয় দুদক কার্যালয়ে। তার বিরুদ্ধে ৫ কোটি ৫৮ লাখ ১৫ হাজার ৮৫৯ টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে দুদক মামলা করেছে। ফকিরাপুল ইয়ংমেন্স ক্লাবে অবৈধ ক্যাসিনো পরিচালনার অভিযোগে গত ১৮ সেপ্টেম্বর খালেদ মাহমুদকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এই দু’জনকেই ৭ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত। গেলো ২০ সেপ্টেম্বর জি কে শামীমকে গ্রেপ্তার করা হয় গুলশান থেকে। তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে নগদ প্রায় দুই কোটি টাকা, পৌনে দুইশো কোটি টাকার এফডিআর, আগ্নেয়াস্ত্র ও মদ উদ্ধারের ঘটনায় মামলা হয়েছে তিনটি। আর অস্ত্র, মাদক ও মুদ্রাপাচার আইনে খালেদের বিরুদ্ধে চারটি মামলা হয়েছে।

এদিকে, দুদক চেয়ারম্যানের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতের জন্য তাঁর কার্যালয়ে আসেন মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান নাছিমা বেগম। তিনি জানান, দুর্নীতির কারণে মানবাধিকার লঙ্ঘনের একটি যোগসূত্র রয়েছে। এ জন্য দুর্নীতি দমন কমিশনের সঙ্গে যৌথভাবে কাজ করতে চায় মানবাধিকার কমিশন।

 

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন