চীনের সাথে বাণিজ্য সম্ভাবনা ও সুযোগকে কাজে লাগাতে পারছে না বাংলাদেশ

0

চীনের সাথে বাণিজ্য সম্ভাবনা ও সুযোগকে কাজে লাগাতে পারছে না বাংলাদেশ। এজন্য কূটনৈতিক তৎপরতার অভাব, মুদ্রা বিনিময় আর প্রকল্প বাস্তবায়নের সক্ষমতার ঘাটতিকেই দায়ী করছেন ব্যবসায়ীরা। চীনের বাজারে সব ধরনের পণ্যের শুল্কমুক্ত সুবিধা চাওয়ার পাশাপাশি বাংলাদেশের শিল্পখাতে চীনা বিনিয়োগ আকর্ষণে মনোযোগ দেওয়ার পরামর্শ তাদের।

বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহৎ অর্থনৈতিক শক্তি চীনের সাথে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যে অনেকটাই পিছিয়ে বাংলাদেশ। বহু চেষ্টার পরও ক্রমশ বাড়ছে দু’দেশের বাণিজ্য ঘাটতি। গেল অর্থবছরে বাংলাদেশ চামড়া, চামড়াজাত পণ্য, পাট ও চিংড়িসহ প্রায় ৬১ কোটি ডলারের পণ্য রপ্তানীর বিপরীতে চীন থেকে আমদানি করেছে অন্তত ৯৫৬ কোটি ডলারের পন্য।

১৪০ কোটি জনসংখ্যার চীন, বাংলাদেশের জন্য হতে পারে অমীত সম্ভাবনার বাজার। মুক্ত বাজার অর্থনীতিতে প্রতিযোগীতায় জেতার জন্য বাংলাদেশের আছে কৃষি, চামড়া, পোষাক শিল্প আর সস্তা শ্রম। ব্যবসায়ী সংগঠনগুলো বলছে , কূটনৈতিক দুর্বলতার কারনেই এ সম্ভাবনাকে কাজ লাগানো যাচ্ছে না।

২০১৬ সালের অক্টোবরে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিং পিং এর ঢাকা সফরে রপ্তানীর ক্ষেত্রে এগিয়েছিল আলোচনা । আর এবছর জুলাইয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বেইজিং সফরে আসার আলো দেখছেন ব্যবসায়ীরা।

সীমাবদ্ধতা স্বীকার করে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, চীনসহ যে কোন বৈদেশিক বিনিয়োগকে সর্বোচ্চ সুবিধা দিতে প্রস্তত বাংলাদেশ।

শুল্কমুক্ত সুবিধা বাড়ানো, বিনিময়ের মাধ্যম হিসেবে মার্কিন ডলারের পরিবর্তে চীনা মুদ্রার ব্যবহারে মনোযোগী হবার আহ্বান ব্যবসায়ীদের।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন