চট্টগ্রাম বন্দরের খালি কন্টেইনার হ্যান্ডেলিং কাজের জন্য নতুন ঠিকাদার নিয়োগ করা সম্ভব হয়নি

0

নির্ধারিত সময়ের এক বছর পেরিয়ে গেলেও চট্টগ্রাম বন্দরের খালি কন্টেইনার হ্যান্ডেলিং কাজের জন্য নতুন ঠিকাদার নিয়োগ করা সম্ভব হয়নি। বন্দর কর্তৃপক্ষকে ম্যানেজ করে পুরনো ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানই আগের রেটেই কাজ করছে দীর্ঘদিন ধরে। বন্দর কর্তৃপক্ষ বলছে টেন্ডারের প্রক্রিয়া চলছে। দুই এক মাসের মধ্যেই নতুন ঠিকাদার নিয়োগ করা হবে।

বাংলাদেশে আমদানী-রপ্তানী বাণিজ্যের প্রায় ৮০ শতাংশই কন্টেইনারে করে পরিচালিত হয়। আর রপ্তানীর চেয়ে আমদানী পণ্যের পরিমাণ প্রায় দ্বীগুণ। তাই বছরে ৩০ লাখ কন্টেইনারের মধ্যে ১৫ লাখেরও বেশী খালি কন্টেইনার হান্ডেলিং করে চট্টগ্রাম বন্দর। তাই খালি কন্টেইনার জাহাজিকরণের ওপর নির্ভর করে বন্দরের অপারেশনাল কার্যক্রম। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের সহায়তায় গুরুত্বপুর্ণ এই কাজটি পরিচালনা করে বন্দর কর্তৃপক্ষ।

সবশেষ ২০১২ সালে টেন্ডারের মাধ্যমে পরবর্তি ৫ বছরের জন্য এভারেস্ট এন্টারপ্রাইজ নামের একটি কোম্পানী খালি কন্টেইনার পরিচালনার দায়িত্ব পায়। ২০১৭ সালের জুন মাসে তাদের মেয়াদ শেষ হলেও বন্দর কর্তৃপক্ষ নতুন করে টেন্ডার প্রক্রিয়া চুড়ান্ত না করার সুযোগে এক বছরেরও বেশী সময় ধরে আগের রেটেই কাজ করছে পুরনো প্রতিষ্ঠানটি। তবে বন্দর কর্তৃপক্ষ বলছে, নতুন করে টেন্ডার প্রক্রিয়া চুড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, নতুন এই টেন্ডার প্রক্রিয়ার এমন কিছু জটিল শর্ত জুড়ে দেয়ার চেষ্টা চলছে, যেন হাতে গোনা দুই একটি কোম্পানী ছাড়া অন্যরা এই টেন্ডারে অংশ নিতে না পারে।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন