কোনভাবেই সহনীয় পর্যায়ে আসছে না পেঁয়াজের বাজার

0

কোনভাবেই সহনীয় পর্যায়ে আসছে না পেঁয়াজের বাজার। কোন কারণ ছাড়া চালও বিক্রি হচ্ছে কেজি প্রতি ৫ থেকে ৭ টাকা বেশি দামে। এই দুরবস্থার জন্য আমদানি ঘাটতি ও সিন্ডিকেটকে দায়ী করছেন ব্যবসায়ীরা। এদিকে, ক্রেতারা মনে করছেন ব্যবসায়ীদের এক তরফা লাভের মানসিকতা থেকে না বেরিয়ে আসলে দাম কোনভাবেই কমানো সম্ভব নয়।

মাসের পর মাস পেঁয়াজের দাম কমছেনা কোনভাবেই। মিয়ানমার, মিশর ও তুরস্কের পর চীন ও পাকিস্তান থেকে আমদানি করা হয়েছে পেঁয়াজ। তবুও ঝাঁজ কমছেনা এতটুকুও।

রাজধানীর কারওয়ান বাজারে বিদেশি পেঁয়াজের তুলনায় দেশি পেয়াজের মজুদ অনেক কম। ব্যবসায়ীরা মনে করেন, আমদানি যা করা হচ্ছে সেটা চাহিদার তুলনায় অনেক কম। ক্রেতারাও ক্ষুব্ধ দামের এমন চিত্র দেখে। ভোক্তা অধিকারের নজরদারি রয়েছে নামেমাত্র।

চীন থেকে আমদানি করা পেয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকা কেজি দরে আর পাকিস্তানের পেয়াজ ১৮০ টাকায়। মিশরের বড় পেয়াজ প্রতি কেজি ১৯০ টাকায়।

চালের বাজারও উর্ধ্বমুখী। গেলো সপ্তাহে কেজি প্রতি ৫ থেকে ৮ টাকা বেড়েছে। চালের ও পেয়াজের সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রণে সরকারকে কঠোর হওয়ার পরামর্শ ক্রেতাদের।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন