একুশে ফেব্রুয়ারি কি এবং কেন তা তরুণ প্রজন্মের অনেকেই জানে না

0

একুশে ফেব্রুয়ারি কি এবং কেন, তা তরুণ প্রজন্মের অনেকেই জানে না। দিনটিকে শুধু আনন্দ উপলক্ষ হিসেবেই মনে করে তারা। রাজধানীর শহীদ মিনারগুলো সারা বছর অযত্নে পড়ে থাকলেও, একুশে ফেব্রুয়ারিকে ঘিরে চলে পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ। তবে এসবের জন্য সরকারের উদাসীনতাকেই দায়ী করলেন ভাষা সৈনিক আহমদ রফিক। আর একুশে ফেব্রুয়ারির চেতনাকে ছড়িয়ে দিতে সার্বিক আন্দোলন প্রয়োজন বলেও মনে করেন তিনি।

১৯৫২ সালের একুশে ফেব্রুয়ারি, ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে বাংলাকে রাষ্টভাষা করার দাবিতে ঢাকার রাজপথে নেমে আসে ছাত্র সমাজ। কিছুক্ষন পর ছাত্রদের এ মিছিলে গুলী বর্ষন করে বর্বর পাকিস্তানী বাহিনী। মুহুর্তেই মাটিতে লুটিয়ে পড়ে সালাম, বরকত, জব্বারসহ নাম না জানা অনেকেই।

অনেক ত্যাগ ও রক্তের বিনিময়ে অর্জিত হয় বাংলা ভাষার অধিকার। আর সেই থেকেই দিনটিকে ভাষা দিবস হিসেবে পালন করছে বাংলাদেশের মানুষ। এমনকি বিশ্ব দরবারে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের স্বীকৃতিও পেয়েছে দিনটি।

অর্জনে কৃতিত্ব থাকলেও, দিবসটির মর্মকথাই জানে না তরুন প্রজন্মের অনেকেই। এই দিনটি তাদের কাছে আনন্দের উপলক্ষ মাত্র। রাজধানীর শহীদ মিনারগুলো সারা বছর পড়ে থাকে অযত্ন-অবহেলায়। দিনটি সামনে এলেই চলে সৌন্দর্যবর্ধনের কাজ। এমন অনেক স্কুল-কলেজও আছে, যেখানে কোনো শহীদ মিনারই নেই।

পাঠ্যবইয়ে একুশ ফেব্রূয়ারি সম্পর্কে প্রবন্ধ থাকলেও, তরুন প্রজন্মের অনেকেরই আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস সম্পর্কে স্পষ্ট ধারনা নেই। শিক্ষা-ব্যবস্থা নিয়ে প্রশ্ন তাই উঠতেই পারে বলে মনে করেন, এই ভাষাসৈনিক। এজন্য সরকারের উদাসীনতার পাশাপাশি সুশীল সমাজকেও কিছুটা দায়ি করলেন তিনি। সর্বস্তরে বাংলা ভাষা চালু করতে না পারাও অন্যতম কারন বলে মনে করেন তিনি। তবে এমন অবস্থা থেকে উত্তরন অনেকটা কঠিন উল্লেখ করে, তরুন সমাজকে একটি সার্বিক সামাজিক ও রাজনৈতিক আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানান, আহমদ রফিক।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন