ঈদে ঘরমুখো মানুষের নিরাপদ ও ঝক্কি-ঝামেলাহীন যাত্রা নিয়ে শঙ্কা

0

ঈদে ঘরমুখো মানুষের নিরাপদ ও ঝক্কি-ঝামেলাহীন যাত্রা নিয়ে শঙ্কা জানিয়েছে বাংলাদেশ যাত্রীকল্যাণ সমিতি। দুপুরে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে এক সভায়, এমন শঙ্কার কথা জানায় সংগঠনটি। ৪০ শতাংশ সড়কে খানাখন্দে থাকা, ফিটনেসবিহীন গাড়ি, টোলঘর, খোঁড়াখুঁড়ি ও মহাসড়কে চাঁদাবাজিসহ নানা কারণে– এই ভোগান্তি ও দুর্ঘটনার আশঙ্কা তাদের। দুর্ভোগ লাঘবে সড়কের পাশের হাটবাজার, অবৈধ পার্কিং ও দখল উচ্ছেদ, টোলপ্লাজার সব বুথ চালু, চাঁদাবাজি বন্ধসহ বেশকিছু সুপারিশ করেছে তারা।

এবার ঈদে ঢাকা থেকে ১ কোটি ১৫লাখ এবং সারাদেশে এক জেলা থেকে অন্য জেলায় প্রায় চারকোটি লোক যাতায়াত করবে। আর এই যাত্রী পরিবহনে ৬ দিনে ১৫ কোটি ট্রিপের প্রয়োজন হবে। অথচ দেশের ৪০ শতাংশ সড়কের এখনো বেহাল দশা। পরিবহন মালিক ও শ্রমিক সংগঠনের নেতা, পরিবহন বিশেষজ্ঞ, সাংবাদিকসহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষকে নিয়ে আয়োজন করা হয় এই সভার। রাস্তা খোড়াখুড়ি, ফিটনেস বিহীন গাড়ির দৌরাত্ম্য এবং চাঁদাবাজির বিষয়গুলো প্রতিবছরই ঘটলেও এর সমাধান হয়নি আজো।

যানজট ও দুর্ঘটনার জন্য পরিবহন মালিক ও শ্রমিকদের পাশাপাশি রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলোর ভূমিকার অভাবকে দায়ি করেছেন কেউ কেউ। সড়ক মহাসড়কের নানা অনিয়ম আর অসঙ্গতির চিত্র তুলে ধরেন যাত্রীকল্যাণ সমিতির মহাসচিব। রেশিনিং পদ্ধতিতে ছুটির ব্যবস্থা, সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের লোকজনকে নিজস্ব পরিবহনে আনা নেয়া, ফিটনেস বিহীন গাড়ি ও নসিমন করিমন বন্ধসহ ১৩টি সুপারিশ তুলে ধরা হয় সভায়।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন