আসামের নাগরিক তালিকা রাজনৈতিক কারণে হলে বাংলাদেশ চাপে পড়বে

0

আসামের নাগরিক তালিকা থেকে ১৯ লাখ অধিবাসীকে বাদ দেয়ার ঘটনা রাজনৈতিক কারণে হলেও এটি বাংলাদেশকে আরো চাপে ফেলতে পারে। এমনটাই মনে করেন প্রবীণ রাজনীতিবিদ কমরেড খালেকুজ্জামান। অন্যদিকে বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও রাজনীতিবিদ অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরীর মতে, এটি সাম্প্রদায়িক সহিংসতাকে উৎসাহিত করবে। এ বিষয়ে সোচ্চার হতে সরকারকে অনুরোধ জানিয়েছেন তারা।

আসামের চূড়ান্ত নাগরিক তালিকায় বাদ পড়া অধিবাসীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৯ লাখ ৬ হাজারে ৬৫৭ জন। বিজেপি সরকার না বললেও, দলের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে-এরা বাংলাদেশের নাগরিক। বিজেপি সভাপতি ও ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ সরাসরি বলছেন, নাগরিকপঞ্জি থেকে বাদ পড়া সবাই বাংলাদেশী।

বাংলাদেশ এখনো কোনো আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া জানায়নি। তবে অনানুষ্ঠানিকভাবে বিষয়টি নিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। অনানুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়ার পাশাপাশি প্রস্তুতি হিসেবে দেশের সীমান্তজুড়ে জারি করা হয়েছে সতর্কতা। বিশ্লেষকরা মনে করছেন, ভারতের ক্ষমতাসীন বিজেপির অবস্থানের আনুষ্ঠানিক প্রতিবাদ জানানো উচিত।

আসামের নাগরিক তালিকাকে বিজেপি সরকারের রাজনৈতিক কারসাজি মন্তব্য করে তারা বলছেন, পুরো পরিস্থিতি সাম্প্রদায়িকতাকে উসকে দিতে পারে। দীর্ঘমেয়াদী জটিলতার পড়ার আগে, শুধু সীমান্তে নজরদারী না বাড়িয়ে দ্বি-পাক্ষিক আলোচনা জোরদারের তাগিদ দেন এই দুই বিশ্লেষক। তা না হলে, রোহিঙ্গাদের মত হুট করেই এই সমস্যা চেপে বসতে পারে বাংলাদেশের কাঁধে।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন