অযোধ্যা মামলার রায়: বিতর্কিত ভূমিতে মন্দির হবে, মুসলমানদের বিকল্প জমি

0

ভারতের ঐতিহাসিক অযোধ্যা মামলার রায় ঘোষণা করেছে আদালত। রায়ে বিতর্কিত স্থানটিতে মন্দির স্থাপণের জন্য হিন্দু সম্প্রদায়কে জমির মালিকানা দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। আর মসজিদ নির্মাণের জন্য মুসলিম সম্প্রদায়কে অন্য স্থানে দেয়া হবে বিকল্প জমি। রায়ের পর অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে ভারতের বিভিন্ন শহরে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। নেয়া হয়েছে বাড়তি নিরাপত্তা।

অবশেষে ভারতের সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ’র নেতৃত্বাধীন পাঁচ সদস্যের বিশেষ বেঞ্চ ঐতিহাসিক অযোধ্যা মামলার রায় ঘোষণা করেন। রায়ে মন্দির স্থাপণের জন্য জমির মালিকানা দেওয়া হয়েছে হিন্দুদের। আর মুসলিম সম্প্রদায়ের মসজিদ নির্মাণের জন্য দেওয়া হবে বিকল্প জমি।

রায়ে বলা হয়, ষোড়শ শতকে নির্মিত বাবরি মসজিদের নিচে আসলে মন্দির ছিল। কেননা, সেই জমি খননের পর যে সব জিনিসপত্র পাওয়া গিয়েছিল সেগুলোর সঙ্গে ইসলামিক সংস্কৃতির মিল খুঁজে পাওয়া যায়নি ৷ রায়ে প্রধান বিচারপতি বলেন, ভারতীয় সংবিধানে সব ধর্মকে সমান সম্মান দেয়া হয়েছে। একারণেই দুটি ধর্মীয় সম্প্রদায়ের প্রার্থণালয় নির্মাণের জন্য জমি দেওয়ার কথা বলা হয়ে। রায়ের পর, ভারতের অযোধ্যা, মুম্বাই, কাশ্মীরসহ বিভিন্ন স্থানে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে।

১৯৮০’র দশকে ভারতের বড় রাজনৈতিক ইস্যু হয় ষোড়শ শতকে নির্মিত বাবরি মসজিদ। মুঘল সেনাপতি মির বাকি’র নির্মিত মসজিদের স্থানটি রামের জন্মভূমি বলে দাবি করে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ। আর তাতে সমর্থন দেয় ভারতীয় জনতা পার্টি-বিজেপি। আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় ১৯৯২ সালে বাবরি মসজিদ গুঁড়িয়ে দেয় উগ্র হিন্দুত্ববাদীরা। সেই ইস্যুকে কেন্দ্র করে গোটা ভারতে দাঙ্গায় প্রাণ হারায় দুই হাজারের বেশি মানুষ।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন