অপরিকল্পিতভঅবে বেড়ে ওঠা সিলেট সিটি কর্পোরেশনে খেলার মাঠ নেই বললেই চলে

0

অপরিকল্পিতভঅবে বেড়ে ওঠা সিলেট সিটি কর্পোরেশনে খেলার মাঠ নেই বললেই চলে। একসময় নগরীর পাড়া-মহল্লায় অসংখ্য খেলার মাঠ থাকলেও নগরায়নের ফলে– সেসব মাঠে উঠেছে বাসাবাড়ি-দালানকোঠা।যার প্রভাব পড়ছে তরুণ সমাজের উপর। নির্বাচন এলে খেলার মাঠের সংকট নিয়ে প্রার্থীরা প্রতিশ্রুতি দিলেও কাজ হয়না কিছুই। তরুণ সমাজের আস্থা অর্জনে প্রার্থীরা বলছেন, নির্বাচিত হলে তারা সিটি কর্পোরেশনের নিজস্ব মাঠের ব্যবস্থা করবেন।

সিলেট মহানগরীতে একটি মাত্র স্টেডিয়াম এবং একটি ক্রীড়া কমপ্লেক্স। ফুটবল, ক্রিকেটসহ সব ধরণের খেলাধুলার ভরসা এই দু’টি মাঠই। তাই খেলোয়াড়দের পালা করে খেলতে হয় সারাবছর। এছাড়া সরকারী আলিয়া মাদ্রাসা মাঠ এবং এমসি কলেজ খেলার মাঠে খেলাধুলোর সুযোগ থাকলেও সব মিলিয়ে দু’হাজারেরও বেশি খেলোয়াড় সংকুলান হয় না। ১৫ লাখ জনসংখ্যার এই নগরীর কয়েক লাখ শিশু-তরুণ মাঠের অভাবে খেলাধুলা থেকে বঞ্চিত। এই সমস্যা সমাধানে সিটি করর্পোরেশনকেই দায়িত্ব নেয়ার দাবি নগরবাসির।

নির্বাচিত হলে খেলার মাঠের সংকট নিরসনে কাজ করবেন বলে জানালেন, আওয়ামী লীগ প্রার্থী বদর উদ্দিন আহমদ কামরান। প্রয়োজনে জমি বন্দোবস্ত নিয়ে হলেও খেলার মাঠ বানানোর প্রতিশ্রুতি দেন, বিএনপির প্রার্থী ও সদ্য সাবেক মেয়র আরিফুল হক। শুধু প্রতিশ্রতি নয়, তরুণদের মেধা বিকাশের অন্তরায় খেলার মাঠের সংকট নিরসনে কাজ করবেন নতুন মেয়র– এমনটাই দাবি নগরবাসির।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন