অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে গেল রাজস্ব আদায়

0

অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে গেল নভেম্বরে সবচে’ বেশি রাজস্ব আদায় করেছে চট্টগ্রাম কাস্টম হাউজ। গত কয়েক মাসে চার’শো ৯ কোটি টাকার ঘাটতি পুরণ করে লক্ষ্যমাত্রার চে’ ৫৩ কোটি টাকা বেশি রাজস্ব জমা হয়েছে রাষ্ট্রীয় কোষাগারে। এভাবে চললে বছর শেষে এনবিআরের বেধে দেয়া লক্ষ্যমাত্রা পুরণ করে নতুন রেকর্ড তৈরির কথা জানিয়েছেন কাষ্টমস কমিশনার। আমদানীকারকরা বলছেন, শতভাগ অটোমেশন আর ল্যাবের আধুনিকায়ন করলে আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য বাড়ার পাশাপাশি রাজস্ব আদায়ের পরিমানও বাড়বে।

দেশের সবচেয়ে বড় বাজেট বাস্তবায়নে চলতি অর্থবছরে ৪৯ হাজার কোটি টাকার রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা বেধে দেয়া হয় চট্টগ্রাম কাস্টম হাউজকে। সেই হিসেবে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা দাঁড়ায় প্রতি মাসে প্রায় তিন হাজার আটশো ২৯ কোটি টাকা। জুলাই থেকে অক্টোবর পর্যন্ত গড়ে প্রতিমাসে চার’শো কোটি টাকারও বেশি ঘাটতি থাকলেও নভেম্বরে তা ছাড়িয়ে গেছে। এ মাসে আদায় হয়েছে তিন হাজার আট’শো ৮২ কোটি টাকা। নভেম্বরে অর্জিত এই ধারা ঠিক রাখতে পারলে বছর শেষে রেকর্ড হতে পারে রাজস্ব আদায়ে। উন্নত দেশগুলোর কাস্টমসের তুলনায় এখনো পিছিয়ে আছে চট্টগ্রাম কাস্টম হাউজ। এমন দাবি বিজিএমইএ নেতাদের। তাই লোকবল সংকট নিরসন করে দ্রুত সক্ষমতা বাড়ানোর দাবি করলেন তারা।

আর উর্ধ্বমুখী আমদানী-রপ্তানী বাণিজ্যের সঙ্গে তাল মেলাতে কাস্টম হাউজের ল্যাবকে আধুনিকায়নসহ সবক্ষেত্রে শতভাগ অটোমেশন পদ্ধতি প্রচলনের দাবি অনেকের। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে এককভাবে রাজস্ব আদায়ের সবচেয়ে বড় এই প্রতিষ্ঠানটির প্রবৃদ্ধি ছিলো ১৭ দশমিক ৫০ ভাগ। আর চলতি অর্থবছরের প্রথম পাঁচ মাসে প্রবৃদ্ধি ছাড়িয়েছে ২০ ভাগের বেশি। তাই এনবিআরের বেধে দেয়া লক্ষ্যমাত্রা অর্জন নিয়ে চিন্তিত নন সংশ্লিষ্টরা।

শেয়ার করুন।