নৌ-রুটে ঈদ সার্ভিস পরিচালনা করবে ‘বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষ’

0

এবার বর্ষা-বাদল আর ঝড়-ঝঞ্চার মধ্যেই নৌ-রুটে ঈদ সার্ভিস পরিচালনা করবে ‘বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষ’। তাই যাত্রীদের আশংকা, বেশি মুনাফার লোভে এবারো ঈদে অতিরিক্ত যাত্রীবহন করবেন লঞ্চ মালিকরা; আর তাতে ঘটতে পারে ভয়াবহ দুর্ঘটনা। যাত্রী কল্যাণ সমিতির বক্তব্য, দুর্ঘটনা হলে দায় নিতে হবে সরকারকেই। তবে লঞ্চ মালিক সমিতি জানায়, কেউ আইন লঙ্ঘন করলেই নেয়া হবে ব্যবস্থা।

আসছে মহাখুশির ঈদ; তাই ঈদের ছুটির সাথে আগে-পিছে বাড়তি সময় নিয়ে, বাড়ি ফেরার তাড়া এখন রাজধানীবাসীর।
যাত্রী সংখ্যা আর নিরাপদ যাত্রা বিবেচনায়, নানা ব্যবস্থা নিচ্ছে বিআইডাব্লিউটিএ। ৪১টি রুটে চলবে ১শ’ ৯৯টি লঞ্চ; যাত্রী বহন করবে প্রায় ৮০ লাখ।

ট্রিপ বাড়বে প্রায় ৩৩ ভাগ। যাত্রীদের অভিযোগ, প্রতিটি লঞ্চে ধারণক্ষমতার চেয়ে প্রায় চারগুন বেশি যাত্রী তোলা হয়। তাই অতিরিক্ত যাত্রী আর বেশি ট্রিপের সাথে ঝুঁকিও আছে বেশি।

যাত্রীদের অধিকার নিয়ে কাজ করে, এমন সংগঠনগুলো সরকারকে নিরাপত্তা নিশ্চিতের দাবি জানিয়েছে। তবে লঞ্চ মালিকরা জানান, লোড-লাইন অতিক্রম করবে না কোন লঞ্চ; সার্ভে সার্টিফিকেট নেই এমন লঞ্চ চলবে না। ছাদে যাত্রী নেয়াও হবে না। তবে যাত্রীর অতিরিক্ত চাপ কমাতে রেশনিং পদ্ধতিতে গার্মেন্টস্ শ্রমিকদের ছুটি নির্ধারণের দাবি জানিয়েছেন সবাই।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন